কর্মক্ষেত্রে মানসিক দৃঢ়তা অর্জনের ৬টি কৌশল

কর্মক্ষেত্রে মানসিক দৃঢ়তা অর্জনের ৬টি কৌশল

পেশাজীবীদের জন্য পৃথিবীটা দিন দিন জটিল থেকে জটিলতর হয়ে উঠছে। তবে এ জটিলতা কর্মক্ষেত্রে চ্যালেঞ্জিং হলেও তা একইসঙ্গে অনেক সুযোগও সৃষ্টি করে।

তবে এ চ্যালেঞ্জকে সফলভাবে মোকাবেলা করার জন্য প্রয়োজন ব্যক্তির মানসিক দৃঢ়তা। কেননা মানসিকভাবে দক্ষ ব্যক্তি আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে প্রতিকূল পরিস্থিতিকে নিজের অনুকূলে নিয়ে আসতে পারেন। আর এ কারণেই শারীরিকভাবে সবল হওয়া সত্ত্বেও মানসিক দৃঢ়তার অভাবে অনেককেই ব্যর্থ হতে দেখা যায়।শারীরিক কসরতের পাশাপাশি মানসিক দৃঢ়তা বাড়াতে একজন সফল মূলত সামান্য কয়েকটি বিষয় চর্চা করে থাকেন। জেনে নেই সেগুলো সম্পর্কে-

১. নমনীয়তা-

জটিল কোনো পরিস্থিতিতে সহজ থাকতে হবে। সবকিছু যেভাবে আশা করা হয়, তেমনভাবে নাও ঘটতে পারে। এমন অপ্রত্যাশিত পরিস্থিতিতে হতাশ না হয়ে নমনীয় থাকতে হবে এবং সমস্যার সমাধানের নতুন উপায় খুঁজে বের করার চেষ্টা করতে হবে। একইসঙ্গে পূর্ব জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা যাচাই করে এর থেকে সমাধান বের করার চেষ্টাও করতে হবে।

২. দায়িত্বশীলতা-

একজন দক্ষ নেতা চাপের মধ্যেও তাদের দায়িত্ব সম্পর্কে সচেতন থাকেন। হাজারো চাপের মধ্যেও তিনি ক্রমাগতভাবে পরিস্থিতির বিভিন্ন সুযোগ, চ্যালেঞ্জ এবং হুমকি চিহ্ণিত করে চলেন। এক্ষেত্রে অন্যের মতো করে সমস্যাটির সমাধান নাও হতে পারে–এ বিষয়টি বিবেচনায় রেখে চলমান বৈশ্বিক ঘটনাবলীর সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ নতুন উপায়ের সন্ধান করতে হবে। প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল পরিস্থিতির গুরুত্ব বোঝার ক্ষমতা থাকা এবং একইসঙ্গে পরিস্থিতি অনুযায়ী নিজেকেই বদলে ফেলার মতো দক্ষতাও একজন ব্যক্তির থাকা উচিত।

৩. শক্তিমত্তা-

প্রতিকূল পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়নের মতো মানসিক ও শারীরিক শক্তি থাকা একজন ব্যক্তির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। এমনকি ব্যর্থ হওয়ার নিশ্চিত সম্ভবনা সত্ত্বেও তাদের মনোবল ধরে রাখা জরুরি। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত সর্বোচ্চ ক্ষমতা নিয়ে লড়বার  মানসিকতা থাকতে হবে। এ ধরনের পরিস্থিতিতে খেলোয়াড়দের চিন্তাটি থাকে এমন, ‘পরিস্থিতি যখন কঠিন, আমি তখন তার চেয়েও বেশি কঠিন। ’

৪.আত্মবিশ্বাস ও নৈতিকতা-

কষ্টকর হলেও প্রতিষ্ঠানের স্বার্থে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা থাকতে হবে। এক্ষেত্রে ব্যক্তি যেন অন্যের দ্বারা প্রলুব্ধ বা প্রভাবিত না হয় সেদিকেও সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে।

৫.স্থিতিস্থাপকতা-

প্রকৃত একজন নেতার হতাশা, ভুল এবং সুযোগ হারানোর মতো দুঃখজনক পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠে খুব দ্রুত কাজে ফিরে আসার ক্ষমতা থাকা জরুরি। প্রতিকূল অবস্থায়ও তাদের আশাবাদী থাকতে হবে এবং প্রয়োজন অনুযায়ী দ্রুত নিজেকে পরিবর্তনের ক্ষমতা থাকতে হবে। সমস্যা সমাধানের দক্ষতাসহ অল্প সম্পদ দিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ার উপায় খুঁজে বের করতে হবে।

৬.খেলোয়াড়সুলভ মনোভাব-

সব ব্যক্তির মধ্যেই একটি খেলোয়াড়সুলভ মনোভাব থাকা জরুরি। তাদের পরিকল্পনা যেন কখনোই তার বিরোধীরা জানতে না পারে সেদিকে সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। অন্যের দ্বারা আক্রান্ত হলে বা হেরে গেলেও পেশাদারের মতো পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হবে।

 

বিডি-প্রতিদিন

It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
To Succeed Is To Believe – To Believe Is To Succeed

To Succeed Is To Believe – To Believe Is To Succeed

No one ever said that “life would be easy”. Throughout the years that expression along with “to get anywhere in life you have to work harder than the next person” seems to have been the foundation by which people lived.

While it is true that it takes hard work to advance in this world, no matter what you want to do, no matter what your dream is, the number one most important thing to have success is TO BELIEVE IN ONESELF.  Many think this is a trivial concept yet it isn’t.

We live in a miraculous world where harmony flows into a precise order that, while not always a smooth road to travel, the bumps along the way are life’s lessons that allow each person to push forward in a quest to know oneself better.

That quest either makes or breaks a person because many give up due to the one thing they lack – motivation of belief.

There are the few in this world where it seems outwardly that they have it easy in life and didn’t have to work very hard to get to the top of their field.  This may be true to a few, but stop and think of the reason behind this phenomena.

Is it truly that easy?  It’s a very simple answer, YES!  Because it goes back to the concept that belief is the key.   For whatever reason of which no one can truly explain, some individuals seem to be born with this unique quality in life.

  • A Word in Darkness
  • 3 Keys to Success in Life

But it is inherent in each and every person.  Some of the most influential people throughout time have been taught this concept since early childhood.  While others, and most, have struggled to ascertain this belief in oneself, it’s not just for the elite few.

The ones who were taught early on in life by parents, friends, or mentors to have self-confidence were fortunate indeed, but it is not something that is out of the realm of reach for all.

So, many people ask “how can I grow this concept of belief in myself?  It seems to be easy, yet it is not, and talking about this really isn’t what I would like to do.”  My suggestions are:

1. Take time each day for You

Take time each day for ‘you’ to just ‘be’ without feelings of judgment.  Examples of this are sitting out in nature alone and taking the time to see and feel.

There is a healing power abundant in nature that warms the soul and allows positive feelings to blossom like flower.  In this fast paced world we live in taking even five minutes a day seems hard to muster but it truly is important.

2. Each day, force all Negative Thoughts from your Mind

Each day, force all negative thoughts from your mind. By doing this on a conscious level you allow more harmony to flow within your thoughts.

Start out slowly from three times a day until you do not have to even ‘think’ about this. This practice will literally change your life making you happier and more confident of your future.

3. Surround yourself with Positive, Happy, and Successful Friends

Surround yourself with positive, happy, and successful friends and acquaintances who can’t tear down your dreams.

4. Take time six out of seven days a week to Nurture your Dream

Take time six out of seven days a week to nurture your dream.  This can be a minimum of once a day for an hour, or several times a day for fifteen minutes.  Whether your dream is to be an author/writer, then write; being an artist, then paint; being a singer or actor, then study and learn all you can.

These are just examples however it is essential that adequate time is allowed to make your dream a reality. Slowly increasing this time will naturally occur.

When you can wake up every morning (and think of your dream);all during the day (you think of your dream); and the last thing you do before you go to sleep is to have an all-consuming passion for your dream whether it be for writing, music, art, or singing, whatever your goal is. etc.,

Then you can say you have mastered the most special gift in life, that you truly Believe in yourself.  You are more than halfway to success, you are 100% there because these thoughts of belief transcend into your subconscious like food to the body.

Belief – is the fuel that feeds your passion and allows you to become the person you were meant to be, a SUCCESS.

Source: Successstory.com

 

It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
7 Tips to Manage Your Work and Personal Life.

7 Tips to Manage Your Work and Personal Life.

How often have you become stressed out due to pressures of meeting targets and deadlines at work, conforming to rules and office procedures? How often have you found managing household work, spending time with family members and attending to their needs quite tiresome? Yet, you find lots of successful people go through the same kind of work pressures and troubles at home but they don’t complain or express regrets.

Here are 7 ways to manage work and personal life

1. Keep a Diary of Things to Do

You can keep separate ones for personal and office use. Note down in advance the things you have to next day or even a week ahead- it could be calling a plumber or electrician to fix something, a family event you shouldn’t miss out, immunization for your pet dog or renewing an insurance policy. In the office, jot down the important things to do in the morning, afternoon or evening- it could be getting a report ready for a meeting, calling up important customers or investors.

2. Switch off Mobile/ Avoid Phone Calls When Busy

At the office, if you are busy with a work and working under a tight deadline, switch off the mobile with a facility for urgent callers to leave their message in voice mail. You can set automated messages informing them that they will be called back when free. Tell your front office or secretary not to connect calls for a specified period until your urgent work is over.

3. Prioritize Work

Whether at home or office, there will be several things demanding your attention at the same time. You need to prioritize and tackle the important ones first. At home, if your car needs a battery-check up or has any technical issue or if the child is sick or cooking gas is empty, priority has to be set for the urgent ones. At office too, if a mail has to be urgently sent to a client, it should gain priority over other routine tasks, however big or small.

In order to ensure a proper work-life balance, you need to complete all your work at the office itself. This will enable you to spend time with your spouse and children or meet friends or go for grocery shopping. On the other hand, if you keep attending to calls from office or start working on your laptop, your children could feel left out and you are missing out some quality time with them.

4. Finish Your Work at Office Itself

In order to ensure a proper work-life balance, you need to complete all your work at the office itself. This will enable you to spend time with your spouse and children or meet friends or go for grocery shopping. On the other hand, if you keep attending to calls from office or start working on your laptop, your children could feel left out and you are missing out some quality time with them.

5. Have Meals Together

In a family where husband and wife go for work or business and children go to school, the time for interaction among the family members is restricted. Hence, meal times –breakfast or dinner may be appropriate for all family members to share their thoughts and talk. It will make eating enjoyable.

6. Find Time to Interact with Colleagues

Work pressures may force you to sit at your desk for long hours and meetings may be strictly formal. You must find time to interact with them even if is for a day during lunch break, tea breaks, and exchange pleasantries. It can create better bonding and help you get things done faster and quicker.

7. Find Time for a Short Trip

It is always better to find time for a short trip to a resort, a lake, theme park, etc as experiences bring more happiness to you than material things. Such outings once in a month could take away the pressures of daily living and make it enjoyable for the whole family.

source: Success story.com

It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
কর্মজীবনে বড় পরিবর্তন আনতে চাইলে ৭ বিষয়ে মনোযোগ দিন

কর্মজীবনে বড় পরিবর্তন আনতে চাইলে ৭ বিষয়ে মনোযোগ দিন

ব্যক্তিগত বা কর্মজীবনে পরিবর্তন আনার বিষয়টি ক্লান্তিকর মনে হতে পারে। আগের আনন্দময় জীবনে ফিরে যাওয়া, ধূমপান ছাড়া বা ক্যারিয়ারে উন্নতি আনা ইত্যাদি ক্ষেত্র বদলে দেওয়ার গোপন মন্ত্র রয়েছে। বিশেষজ্ঞরা গবেষণার মাধ্যমে এসব মন্ত্রের সন্ধান করেন। এখানে জেনে নিন পেশাগত জীবনে বড় পরিবর্তন আনার কিছু কার্যকর কৌশল।
১. আকর্ষণীয় বিষয়গুলো বেছে নিন
জীবনে কী কী বিষয় ভালো লাগে তার তালিকা প্রস্তুত করুন। এর মধ্য থেকে যা আপনাকে ভালো কিছু দেয়, সেগুলো পৃথক করুন। এ কাজে নিজের ওপর সেন্সর আরোপ করবেন না। আকর্ষণীয় ও মজাদার বিষয়গুলোতে নজর দিন। স্বস্তিবোধের উৎসগুলো মনোযোগের সঙ্গে বেছে নিন। এ তালিক তৈরি পেশাজীবনের প্রথম মূল্যবান পদক্ষেপ হতে পারে। এ বিষয়ে অভিজ্ঞজনের পরামর্শও নিতে পারেন।
২. পরীক্ষা চালান
তালিকা প্রস্তুত করে লক্ষ্য নির্ধারণ করুন। সেই পথে সোজা এগিয়ে যান। ভালো মনে হলে ফিরে আসার চিন্তাও করবেন না। পরীক্ষমূলক প্রক্রিয়ার জন্য এগিয়ে যান। খুঁজে বের করুন কোন উপায়টি সবচেয়ে সরল ও কম খরচের। এমন পেশার ক্ষেত্রে কিছুদিন যাতায়াত করুন। বুঝে দেখুন এটা আপনাকে কতটা আগ্রহী করে তুলছে। এর ভবিষ্যত্টা কেমন হতে পারে তাও বিশ্লেষণের চেষ্টা করুন।
৩. অংশীদার খুঁজে নিন
ব্যবসার অংশীদার না হোক, নিজের পরিকল্পনা কারো সঙ্গে ভাগ করে নিন। লক্ষ্যে পৌঁছানোর প্রয়োজনীয় কৌশল সম্পর্কে ধারণা নিন। এদের উপভোগ্য করে তুলুন। আপনার মতোই ধ্যান-ধারণার সহযোগী পেলে সুবিধা মিলবে।
৪. অবসর সময় ব্যয় করুন
সব মানুষের মুখে একটি কথা খুব বেশি শোনা যায়। তা হলো—‘একদম সময় পাই না।’ জীবনে বড় পরিবর্তন আনতে এর চেয়ে নেতিবাচক বিষয় আর হয় না। ব্যস্ততা থাকতেই পারে; কিন্তু অবসর সময়ও থাকে। এই বাড়তি সময়ে জীবনের বিভিন্ন জানালায় উঁকি দিন। অন্যান্য ছোটখাটো পরিবর্তন আনুন। সকালে ওঠার চেষ্টা, রাতে দ্রুত বিছানায় যাওয়া, ঘুমের আগে টেলিভিশন বা স্মার্টফোনে ব্যস্ত না থাকা ইত্যাদি অভ্যাস আপনাকে অনেক কিছু দেবে। এতে অনেক সময় বেঁচে যাবে।
৫. আত্মোপলব্ধির কৌশল
নিজেকে বুঝতে বা ঝালাই করে নিতে প্রতিদিন ১৫-৩০ মিনিট সময় দিন। প্রতিদিন এ সময় কোনো জার্নাল পড়ুন। কিংবা যোগচর্চা, মেডিটেশন বা স্রেফ চুপচাপ বসে থাকাতেও দারুণ উপকার পাবেন। এসব কর্মকাণ্ডে মাথায় কিছু সৃষ্টিশীল আইডিয়া আসবে। এগুলো কাজে লাগাতে পারেন।
৬. অদ্ভুত ও নতুন বিষয়ের সন্ধান করুন
নতুন কিছু জানার আকাঙ্ক্ষা পৃথিবীর সব সফল মানুষের মধ্যে দেখা গেছে। নতুন নতুন জার্নাল বা বই পড়ার চেষ্টা করুন। অদ্ভুত বিষয় সম্পর্কে জানার আগ্রহ গড়ে তুলুন। এখানেও নতুন কিছুর সন্ধান পাবেন। বিচিত্র শিক্ষা আপনাকে আরো বেশি জ্ঞান দেবে।
৭. তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করুন
যেকোনো কাজে এগোনোর আগে তার সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করুন। এসব তথ্য নিয়ে একটি ফাইল প্রস্তুতি করুন। এ খাতের পুরনো মানুষের সঙ্গে কথা বলুন। তাদের বাস্তব অভিজ্ঞতা সম্পর্কে জানুন। এসব তথ্য আপনাকে অন্যদের থেকে অনেক এগিয়ে নেবে। –
source:kalerkantho
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
50 COMMON INTERVIEW QUESTIONS AND ANSWERS

50 COMMON INTERVIEW QUESTIONS AND ANSWERS

 

Review these typical interview questions and think about how you would answer them. Read the questions listed; you will also find some strategy suggestions with it.

  1. Tell me about yourself: The most often asked question in interviews. You need to have a short statement prepared in your mind. Be careful that it does not sound rehearsed. Limit it to work-related items unless instructed otherwise. Talk about things you have done and jobs you have held that relate to the position you are interviewing Start with the item farthest back and work up to the present.
  1. Why did you leave your last job? Stay positive regardless of the circumstances. Never refer to a major problem with management and never speak ill of supervisors, co-workers or the organization. If you do, you will be the one looking bad. Keep smiling and talk about leaving for a positive reason such as an opportunity, a chance to do something special or other forward-looking
  1. What experience do you have in this field? Speak about specifics that relate to the position you are applying for. If you do not have specific experience, get as close as you
  1. Do you consider yourself successful? You should always answer yes and briefly explain why. A good explanation is that you have set goals, and you have met some and are on track to achieve the
  1. What do co-workers say about you? Be prepared with a quote or two from co- workers. Either a specific statement or a paraphrase will work. Jill Clark, a co-worker at Smith Company, always said I was the hardest workers she had ever known. It is as powerful as Jill having said it at the interview
  1. What do you know about this organization? This question is one reason to do some research on the organization before the interview. Find out where they have been and where they are going. What are the current issues and who are the major players?
  1. What have you done to improve your knowledge in the last year? Try to include improvement activities that relate to the job. A wide variety of activities can be mentioned as positive self-improvement. Have some good ones handy to
  1. Are you applying for other jobs? Be honest but do not spend a lot of time in this area. Keep the focus on this job and what you can do for this organization. Anything else is a
  1. Why do you want to work for this organization?This may take some thought and certainly, should be based on the research you have done on the organization. Sincerity is extremely important here and will easily be sensed. Relate it to your long-term career goals.
  1. Do you know anyone who works for us? Be aware of the policy on relatives working for the organization. This can affect your answer even though they asked about friends not relatives. Be careful to mention a friend only if they are well thought of.
  1. What kind of salary do you need? A loaded question. A nasty little game that you will probably lose if you answer first. So, do not answer it. Instead, say something like, that’s a tough question. Can you tell me the range for this position? In most cases, the interviewer, taken off guard, will tell you. If not, say that it can depend on the details of the job. Then give a wide
  1. Are you a team player? You are, of course, a team player. Be sure to have examples ready. Specifics that show you often perform for the good of the team rather than for yourself is good evidence of your team attitude. Do not brag; just say it in a matter-of-fact tone. This is a key
  1. How long would you expect to work for us if hired? Specifics here are not good. Something like this should work: I’d like it to be a long time. Or As long as we both feel I’m doing a good
  1. Have you ever had to fire anyone? How did you feel about that? This is serious. Do not make light of it or in any way seem like you like to fire people. At the same time, you will do it when it is the right thing to do. When it comes to the organization versus the individual who has created a harmful situation, you will protect the organization. Remember firing is not the same as layoff or reduction in
  1. What is your philosophy towards work? The interviewer is not looking for a long or flowery dissertation here. Do you have strong feelings that the job gets done? Yes. That’s the type of answer that works best here. Short and positive, showing a benefit to the
  1. If you had enough money to retire right now, would you? Answer yes if you But since you need to work, this is the type of work you prefer. Do not say yes if you do not mean it.
  1. Have you ever been asked to leave a position? If you have not, say no. If you have, be honest, brief and avoid saying negative things about the people or organization involved.
  1. Explain how you would be an asset to this organization. You should be anxious for this question. It gives you a chance to highlight your best points as they relate to the position being discussed. Give a little advance thought to this
  1. Why should we hire you? Point out how your assets meet what the organization needs. Do not mention any other candidates to make a
  1. Tell me about a suggestion you have made. Have a good one ready. Be sure and use a suggestion that was accepted and was then considered successful. One related to the type of work applied for is a real
  1. What irritates you about co-workers? This is a trap question. Think real hard but fail to come up with anything that irritates you. A short statement that you seem to get along with folks is
  1. What is your greatest strength? Numerous answers are good, just stay positive. A few good examples: Your ability to prioritize, Your problem-solving skills, Your ability to work under pressure, Your ability to focus on projects, Your professional expertise, Your leadership skills, Your positive attitude .
  1. Tell me about your dream job. Stay away from a specific job. You cannot win. If you say the job you are contending for is it, you strain credibility. If you say another job is it, you plant the suspicion that you will be dissatisfied with this position if hired. The best is to stay genetic and say something like: A job where I love the work, like the people, can contribute and can’t wait to get to
  1. Why do you think you would do well at this job? Give several reasons and include skills, experience and
  1. What are you looking for in a job? See answer # 23

What kind of person would you refuse to work with? Do not be trivial. It would take disloyalty to the organization, violence or lawbreaking to get you to object. Minor objections will label you as a

  1. What is more important to you: the money or the work? Money is always important, but the work is the most important. There is no better
  1. What would your previous supervisor say your strongest point is? There are numerous good possibilities: Loyalty, Energy, Positive attitude, Leadership, Team player, Expertise, Initiative, Patience, Hard work, Creativity, Problem solver
  1. Tell me about a problem you had with a supervisor biggest trap of all. This is a test to see if you will speak ill of your boss. If you fall for it and tell about a problem with a former boss, you may well below the interview right there. Stay positive and develop a poor memory about any trouble with a
  1. What has disappointed you about a job? Don’t get trivial or negative. Safe areas are few but can include: Not enough of a challenge. You were laid off in a reduction Company did not win a contract, which would have given you more
  1. Tell me about your ability to work under

You may say that you thrive under certain types of pressure. Give an example that relates to the type of position applied for.

  1. Do your skills match this job or another job more closely? Probably this one. Do not give fuel to the suspicion that you may want another job more than this
  1. What motivates you to do your best on the job? This is a personal trait that only you can say, but good examples are: Challenge, Achievement, Recognition
  1. Are you willing to work overtime? Nights? Weekends? This is up to you. Be totally
  1. How would you know you were successful on this job? Several ways are good measures: You set high standards for yourself and meet them. Your outcomes are a success. Your boss tell you that you are successful
  1. Would you be willing to relocate if required? You should be clear on this with your family prior to the interview if you think there is a chance it may come Do not say yes just to get the job if the real answer is no. This can create a lot of problems later on in your career. Be honest at this point and save yourself future grief.
  1. Are you willing to put the interests of the organization ahead of your own? This is a straight loyalty and dedication question. Do not worry about the deep ethical and philosophical implications. Just say
  1. Describe your management style. Try to avoid labels. Some of the more common labels, like progressive, salesman or consensus, can have several meanings or descriptions depending on which management expert you listen to. The situational style is safe, because it says you will manage according to the situation, instead of one size fits
  1. What have you learned from mistakes on the job? Here you have to come up with something or you strain credibility. Make it small, well intentioned mistake with a positive lesson learned. An example would be working too far ahead of colleagues on a project and thus throwing coordination
  1. Do you have any blind spots? Trick question. If you know about blind spots, they are no longer blind spots. Do not reveal any personal areas of concern here. Let them do their own discovery on your bad points. Do not hand it to
  1. If you were hiring a person for this job, what would you look for? Be careful to mention traits that are needed and that you
  1. Do you think you are overqualified for this position? Regardless of your qualifications, state that you are very well qualified for the
  1. How do you propose to compensate for your lack of experience? First, if you have experience that the interviewer does not know about, bring that up: Then, point out (if true) that you are a hard working quick
  1. What qualities do you look for in a boss? Be generic and positive. Safe qualities are knowledgeable, a sense of humor, fair, loyal to subordinates and holder of high standards. All bosses think they have these
  1. Tell me about a time when you helped resolve a dispute between others. Pick a specific incident. Concentrate on your problem solving technique and not the dispute you
  1. What position do you prefer on a team working on a project? Be honest. If you are comfortable in different roles, point that
  1. Describe your work ethic. Emphasize benefits to the organization. Things like, determination to get the job done and work hard but enjoy your work are

What has been your biggest professional disappointment? Be sure that you refer to something that was beyond your control. Show acceptance and no negative

  1. Tell me about the most fun you have had on the job. Talk about having fun by accomplishing something for the
  1. Do you have any questions for me? Always have some questions prepared. Questions prepared where you will be an asset to the organization are good. How soon will I be able to be productive? and What type of projects will I be able to assist on? Are
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
সফলদের মাঝে যে দোষ কখনোই পাবেন না

সফলদের মাঝে যে দোষ কখনোই পাবেন না

যারা নিজের পরিশ্রমে সফল কিংবা ধনী হয়েছেন তারা সব সময়েই কিছু গুণের অধিকারী। এসব গুণের মধ্যে কয়েকটি তুলে ধরা হলো এ লেখায়। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
১. তারা টিভিপ্রিয় নয়
টিভি দেখে সময় নষ্ট করার মতো মানুষ নন নিজ পরিশ্রমে ধনী হয়ে ওঠা ব্যক্তিরা। তারা টিভি দেখার বদলে বই পড়তে কিংবা নিজেই টিভি অনুষ্ঠান তৈরি করতে পছন্দ করেন। বিলিয়নেয়ার ইলন মাস্ক থেকে শুরু করে ওয়ারেন বাফেট পর্যন্ত অধিকাংশ ধনীই এ গুণের অধিকারী। তারা কোন ধরনের বই পড়েন এ প্রশ্নে ভিন্ন ভিন্ন উত্তর পাওয়া গেছে। তবে তাদের অনেকেই নন-ফিকশন ধরনের ও নিজেকে উন্নত করার উপযোগী বই পড়েন।
২. তারা নিজেদের বিচ্ছিন্ন করেন না
নিজ চেষ্টায় মিলিয়নেয়াররা অত্যন্ত সামাজিক প্রাণী। তারা সব সময় মানুষের সঙ্গে মেলামেশা করেন ও নিত্যনতুন মানুষের সঙ্গে কথা বলেন। তারা সব সময় তাদের নেটওয়ার্ক উন্নত করার কাজে সময় ব্যয় করেন। এজন্য তাদের আগ্রহেরও শেষ নেই।
৩. তারা দ্বিতীয়বার ভাবেন না
যে কোনো বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এ ধরনের ব্যক্তিরা আগেই সব চিন্তাভাবনা সেরে নেন। সিদ্ধান্ত নিতে হলে সব বিষয় বিবেচনা করেই তারা সিদ্ধান্ত নেন। এ কারণে কোনো একটি বিষয়ে তারা সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর দ্বিতীয়বার তা নিয়ে ভাবেন না। আগেই যে পথ ঠিক করেছেন, সে পথেই এগিয়ে যান।
৪. যুদ্ধ ছাড়া আত্মসমর্পণ নয়
সফলরা বিপদের আঁচ পেলে তা থেকে পালিয়ে যান না। তারা সব বাধাবিপত্তি এড়িয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। বহু উদ্যোক্তাই সমালোচনা ও পরিবার কিংবা সঙ্গীদের বিরোধীতার মুখেও প্রকল্প থেকে পিছিয়ে আসেন না। তারা যে কোনো বিষয়ে লেগে থেকে তা সফল করে তবেই ছাড়েন।
৫. স্বাস্থ্যসচেতন
বহু ধনী উদ্যোক্তাকেই নিজের স্বাস্থ্যগত বিষয়ে সচেতন দেখা যায়। অনেকেই জিমে যাতায়াত করেন এবং নিজের স্বাস্থ্য ঠিক রাখেন।
৬. দেরি নয়
সকালে অ্যালার্ম ঘড়ির স্নুজ বাটন চেপে ঘুমাতে যাননা সফল ব্যক্তিরা। তারা নিয়মিত সময় ধরে কর্মস্থলে যান এবং ভালোভাবে দিনটি শুরু করেন।
৭. কখনোই একঘেয়ে নয়
সফল ব্যক্তিরা কখনোই একঘেয়ে জীবনযাপন করেন না। তারা বিভিন্ন সুযোগ গ্রহণ করতে উদগ্রিব থাকেন এবং নানা বিষয় থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন। তারা সব সময় মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করেন, বই পড়েন এবং তাদের শিক্ষা ও দক্ষতা বাড়াতে সচেষ্ট থাকেন।
source:http://www.kalerkantho.com
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
যে ১০ ভুল স্মার্ট মানুষ কখনোই দ্বিতীয়বার করে না

যে ১০ ভুল স্মার্ট মানুষ কখনোই দ্বিতীয়বার করে না

জীবনের নানা ক্ষেত্রে ভুল হওয়াই স্বাভাবিক। তবে এসব ভুল একবার করার পরেই আমাদের সতর্ক হয়ে যাওয়া উচিত। একটি ভুল যদি বারবার হয় তাহলে তা স্বাভাবিক নয় বরং অস্বাভাবিকই বলা যায়। এ লেখায় থাকছে তেমন কয়েকটি ভুল। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে ফোর্বস।
১. অন্ধভাবে কোনো বিষয় বিশ্বাস
কোনো কোনো মানুষ তাদের কথার ফুলঝুরি প্রয়োগ করে নানা বিষয়ে তাদের নিজের গুণকীর্তন করে। আর এসব দেখে অনেকেই অন্ধভাবে তাকে বিশ্বাস করতে থাকে। এ বিষয়টি যদি ভুল বলে প্রমাণিত হয় তাহলে বোকা মানুষেরা এ ভুল আবার করতে উদ্যোগী হয়। যদিও স্মার্ট মানুষ এ ভুল দ্বিতীয়বার করে না।
২. ভিন্ন ফলাফলের আশায় একই কাজ বারবার করা
একই কাজ বারবার করলে তা একই ফল দেবে, এটাই স্বাভাবিক। আর এক্ষেত্রে ভিন্ন ফলের আশা করা বোকামি। তাই বুদ্ধিমান মানুষেরা একই কাজ বারবার করে ভিন্ন ফলের আশা করে না।
৩. পরিতৃপ্তি নিতে ব্যর্থতা
ধীরে ধীরে কোনো একটি বইয়ের শেষ দৃশ্য পর্যন্ত পড়লে যেমন পরিতৃপ্তি পাওয়া যায় তা শর্টকাট উপায়ে শেষ করে পাওয়া যায় না। এক্ষেত্রে হঠাৎ শেষ দৃশ্যে চলে গেলে তা এক ধরনের ব্যর্থতা তৈরি করে। আর স্মার্ট মানুষের উচিত এমন ব্যর্থতা এড়িয়ে চলা।
৪. বাজেট ছাড়া কাজ
কোনো কাজে নামার আগেই সে কাজের বিস্তারিত তথ্য জেনে রাখা উচিত। এসব তথ্য জানা না থাকলে তা কাজটি সমাধান করতে সমস্যা তৈরি করে। আর এ ধরনের ব্যর্থতা একবার হলেও তা যেন বারবার না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখে স্মার্ট মানুষেরা।
৫. বৃহত্তর দৃষ্টিতে দেখা
কোনো বিষয়ে একপাশ থেকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করলে তাতে সম্পূর্ণ বিষয়টির সত্যতা জানা যায় না। আর এ বিষয়টি অনেকেই ভুলক্রমে করে থাকেন। যদিও স্মার্ট মানুষের কাজ এমন ভুল একবার হলেও যেন বারবার না হয় সেদিকে লক্ষ রাখা।
৬. হোমওয়ার্ক বাদ দেওয়া
শিক্ষা জীবনের মতোই কর্মজীবনেও হোমওয়ার্কের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। আর এ প্রয়োজনীয়তা মেটাতে না পারলে কোনো প্রকল্পে ব্যর্থতা আসতে পারে। এক্ষেত্রে স্মার্ট মানুষের কাজ দ্বিতীয়বার এ ভুল না করা।
৭. নিজে যা নয়, তা হওয়া
প্রত্যেক মানুষেরই একটি নিজস্ব সীমাবদ্ধতা রয়েছে। নিজের এ সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে তোলার চেষ্টা করা যায় কিন্তু তা কাটিয়ে তোলার আগেই অনুরূপ ভান করা মোটেই ভালো নয়। এটি আপনাকে ভুলভাবে উপস্থাপন করতে পারে। আর স্মার্ট মানুষ কখনোই এ ভুল করে না।
৮. সবাইকে খুশি করা
একজন মানুষের পক্ষে সবাইকে খুশি করা সম্ভব নয়। এক্ষেত্রে নিজে ন্যায়ের পথে থাকলেই চলে। তবে অনেকে সবাইকে খুশি করতে গিয়ে বিপাকে পড়ে। আর স্মার্ট মানুষ সহজেই বিষয়টি বুঝতে পেরে এ ভুল দ্বিতীয়বার করে না।
৯. অবস্থার শিকার হওয়া
কোনো বিরূপ পরিস্থিতিতে মানুষ পড়তে পারে যেখানে অবস্থার শিকার হয়ে যেতে হয়। তবে এ ধরনের পরিস্থিতি যেন আর না হয় সেদিকে নজর থাকে স্মার্ট মানুষের।
১০. কাউকে পরিবর্তনের চেষ্টা করা
মানুষের স্বভাব পরিবর্তন করা অনেকটা অরণ্যে রোদনের মতোই কাজ। যতই চেষ্টা করুন একজন মানুষের স্বভাব পরিবর্তন করতে পারবেন না, যদি তিনি নিজে চেষ্টা না করেন। আর তাই স্মার্ট মানুষ অন্যের স্বভাবের পরিবর্তনের চেষ্টা না করে তার বদলে অন্য কোনো কাজে মনোযোগী হয়।
Source:http://www.kalerkantho.com
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
মনের মতো কাজ যেভাবে বাছবেন

মনের মতো কাজ যেভাবে বাছবেন

১. যে কাজে অজান্তেই সময় চলে যায়
প্রতিদিনের জীবনে আপনি নির্দিষ্ট কাজের তালিকায় সেঁটে যেতে পারেন। এমন কিছু কাজ আছে যাতে সব ভুলে নিবিষ্ট হয়ে পড়েন আপনি। নাওয়া-খাওয়া ভুলে কখন সময় যায় তা ঠাওর হয় না। বুঝতে হবে, এ ধরনের কাজে আপনি দারুণ মজা পান।
২. ছোটকালে যা পছন্দ ছিল
স্মৃতি হাতড়ে বের করুন, শৈশবে কোনো না কোনো কাজে জড়িয়ে পড়তে অস্থির হতেন। তখন অন্যকে খুশি করতে বা অর্থ উপার্জনের উদ্দেশ্য নিয়ে আপনি কাজগুলো করেননি। কেবল নির্ভেজাল আনন্দ পেতেই লুকিয়ে হলেও এসব করতেন। ওই সব কাজের মধ্যেই আপনার ভবিষ্যৎ জীবনের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য লুকিয়ে থাকতে পারে। এক বিশেষজ্ঞের মতে, শিশু বয়সের সব পছন্দনীয় কাজের একটা তালিকা করা উচিত। এরপর সেখান থেকেই বর্তমান জীবনের প্রিয় কাজটা বাছাই করা যায়।
৩. যা করতে একেবারেই মন চায় না
বিশেষজ্ঞ স্ট্যান হেওয়ার্ড জানান, মনের মতো কাজ পেতে অপছন্দনীয় পেশাগুলোর তালিকাও প্রয়োজন। তাই যে কাজে মন টানে না তার তালিকা প্রস্তুত করে ফেলুন। এতে বেশ কয়েকটি ভালো কাজের সন্ধান মিলবে। সেখান থেকে খুঁজে নিন, কোনটিতে ঝাঁপ দিতে ব্যাপক সাহসী হয়ে উঠছে মন।
৪. জীবনী পড়ার অভ্যাস
বিখ্যাত মানুষের জীবনী পড়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন। তাঁদের ইচ্ছা, চাহিদা, ভালোবাসা কিংবা ঘৃণা সম্পর্কে জানুন। পেশা বাছাইয়ে সফল মানুষদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার বুঝতে পারবেন। তাঁদের উৎসাহ ও যুদ্ধজয়ের গল্পে নিজেরটার দিশা পাবেন।
৫. দক্ষতা, আবেগ ও অন্যান্য পথের তুলনা
প্রথমেই নিজের শক্তিমত্তা সম্পর্কে ধারণা নিন। কোন কাজগুলো আপনি ভালোমতো করতে পারেন, কোন কাজে দুর্বল এবং কোন কাজে আবেগী হয়ে পড়েন ইত্যাদি জানা জরুরি। এ ছাড়া বিস্তর সুযোগ ছড়িয়ে রয়েছে এমন ক্ষেত্রগুলো শনাক্ত করুন।
৬. পরামর্শে সাবধান
গুরুজন ও অভিজ্ঞদের পরামর্শ খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তাই বলে ঢালাওভাবে উপদেশ নেওয়া উচিত নয়। যে যাই বলছেন, তা সাবধানে গ্রহণ করবেন। এর সঙ্গে নিজের চিন্তাভাবনা ও যুক্তির মিশেল ঘটাতে ভুলবেন না। অন্যের সৎ পরামর্শকে ঝালাই করে সর্বোৎকৃষ্টটা আপনিই বানিয়ে ফেলতে পারেন।
Source:http://www.kalerkantho.com
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের জন্য সেরা ১০ পেশা

অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের জন্য সেরা ১০ পেশা

অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের জন্য সব পেশা নয়। কিছু পেশা রয়েছে তাতে অন্তর্মুখী ব্যক্তিরা ভালো করেন। এ লেখায় রয়েছে তেমন কিছু পেশার কথা। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে বিজনেস ইনসাইডার।
১০. সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার
অন্তর্মুখী ব্যক্তিরা মোটেও মানুষকে অপছন্দ করেন না। তারা মূলত আশপাশে উৎসুক মানুষকে অপছন্দ করেন। আর এ কারণে বহু অন্তর্মুখী ব্যক্তিরই পছন্দ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে কাজ করা। এক্ষেত্রে একটি ভালো কাজ হতে পারে সোশ্যাল মিডিয়া ম্যানেজার। অসংখ্য ফেসবুক কিংবা টুইটারের মেসেজ আদান-প্রদান ও ভক্তদের সামলানো তাদের কাজ। ভার্চুয়াল জগতে বিচরণ ও অন্যের সঙ্গে যোগাযোগ দক্ষতা তারা এতে সহজেই ব্যবহার করতে পারেন।
৯. স্মল-ইঞ্জিন মেকানিক
অনেকের কাছেই ইঞ্জিন ঠিক করা কিংবা ইঞ্জিন নিয়ে পড়ে থাকাকে একঘেয়ে মনে হতে পারে। কিন্তু এটি অন্তর্মুখীদের জন্য অত্যন্ত ভালো কাজ। তারা এ কাজ থেকে যথেষ্ট ভালো উপার্জন করতে পারেন। এছাড়া একাগ্রভাবে কাজ করায় তাদের এক্ষেত্রে ভালো উন্নতিও হতে পারে।
৮. বনকর্মী
কোনো পার্কে কিংবা বনভূমিকে কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করা অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের জন্য হতে পারে খুবই আকর্ষণীয় কাজ। তারা প্রকৃতির মাঝে বিভিন্ন গাছপালা ও পরিবেশ বিষয়ে নানা তথ্য সংগ্রহ করতে পারেন। এ কাজে গাছপালা ও প্রাকৃতিক পরিবেশ যাদের ভালো লাগে তাদের জন্য যথেষ্ট আকর্ষণীয়।
৭. কিউরেটর ও মিউজিয়াম টেকনিশিয়ান
অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের মধ্যে যাদের জাদুঘর, লাইব্রেরি ইত্যাদিতে থাকতে ভালো লাগে তারা এ ধরনের কাজ দেখতে পারেন। এ কাজে জাদুঘরে অসংখ্য প্রত্নবস্তু যত্ন করে রাখা কিংবা লাইব্রেরিতে অসংখ্য বইয়ের মাঝে নিজের আনন্দ খুঁজে নেওয়া যেতে পারে। আর এমন চাকরিতে বেতনও কম নয়।
৬. ওয়েব ডেভেলপার
ওয়েবসাইট তৈরি কিংবা উন্নয়ন করা হতে পারে অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের অন্যতম প্রিয় পেশা। এ কাজে সারাক্ষণ কোনো ব্যক্তির সংস্পর্শে থাকতে হয় না। নানা সৃজনশীলতা ব্যবহার করে ওয়েবসাইট উন্নয়ন করতে হয়। এ কারণে অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের মাঝে এটি অন্যতম জনপ্রিয় পেশা।
৫. শিল্পী
শিল্পীরা রং-তুলি, ভাস্কর্য কিংবা পেন্সিল নিয়ে তাদের দিন পার করে দিতে পারেন। এ কাজে অন্যদের সঙ্গে যোগাযোগ ও কথাবার্তার তুলনায় নিজের সৃজনশীলতার বিকাশই গুরুত্ব পায়। আর এ ধরনের পেশায় প্রচুর অর্থও কামানো যায়।
৪. ভিডিও গেম আর্টিস্ট
ভিডিও গেমের বিভিন্ন চরিত্র ও দৃশ্য বাস্তবতার সঙ্গে তুলনা করে ভার্চুয়াল জগতে স্থাপন করার কাজ এটি। এ কাজে অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের সৃজনশীলতা প্রকাশের বহু উপায় রয়েছে।
৩. প্রাইভেট শেফ
রান্নার কাজটি অনেকে হেলাফেলা করলেও এটি মূলত মোটেও তেমন কাজ নয়। সঠিক স্থানে নিয়োজিত হতে পারলে এ কাজের উপার্জন যথেষ্ট বেশি। অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের সৃজনশীলতা প্রকাশের জন্যও এটি খুবই ভালো কাজ। নিজের উদ্ভাবনী ক্ষমতা ও ধৈর্য প্রকাশ করা যায় এতে।
২. পরিসংখ্যানবিদ
বিভিন্ন পরিসংখ্যানের বিষয় নিয়ে কাজ করেন পরিসংখ্যানবিদরা। এ কাজগুলো যারা করেন তারা সারাক্ষণ হিসাবপত্র নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের মাঝে এ কাজগুলো যাদের প্রিয় তারা যথেষ্ট ভালো বেতনের এ কাজটি দেখতে পারেন।
১. পেট্রলিয়াম জিওলজিস্ট
অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের মাঝে সবচেয়ে ভালো বেতন পান পেট্রলিয়াম জিওলজিস্টরা। এটি অন্তর্মুখী ব্যক্তিদের চরিত্রের সঙ্গেও মানিয়ে যায়। তেল ও গ্যাস তোলার জন্য বড় এলাকার ইঞ্জিনিয়ারিং, মডেলিংয়ে ও নানা উপাত্ত বিশ্লেষণে সময় কাটান এ ধরনের ব্যক্তিরা।
It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn
১৬টি বৈশিষ্ট্যে বুঝে নিন আপনি একজন ভালো বস

১৬টি বৈশিষ্ট্যে বুঝে নিন আপনি একজন ভালো বস

আপনি হয়তো কোনো অফিসের বা বিভাগের বস। নিজেকে কখনো প্রশ্ন করেছেন যে, আমি কি আদর্শ বস? সমস্যা হলো, কিভাবে বুঝবেন আপনি ভালো বস কি না? এটি বিচারে কোনো মানদণ্ড কি আছে? বিশেষজ্ঞ জানিয়েছেন বেশ কয়েকটি লক্ষণের কথা। এগুলোর উপস্থিতিতে বুঝে নিতে পারেন যে, আপনি একজন ভালো বস।

১. আপনি সমব্যথী : ভালো বস তিনিই যিনি কাজের আগে মানবিক বিষয়কে স্থান দেন। কর্মক্ষেত্রে জীবনটা চলে আসলে তিনি তা বুঝতে পারেন। কর্মীদের খারাপ সময়ে আপনি পাশে থাকার চেষ্টা করেন। মানসিকভাবে ভেঙে পড়া কর্মীদের আত্মবিশ্বাসী করে তোলেন।

২. আপনি কর্মীদের নিজেদের মতো করে কাজের সুযোগ দেন : যাদের দেখে-শুনে রাখেন তারা আপনার সঙ্গে নিজেদের চিন্তাধারা শেয়ার করতে অস্বস্তি বোধ করেন না। তারা আপনার কাছ থেকে সাহায্য চান। এ গুণ যেকোনো মানুষকে দারুণ বস হিসাবে তুলে ধরে। বসের এই গুণ কর্মীদের উৎপাদনশীলতা দারুণভাবে বৃদ্ধি করে।

৩. আপনি আত্মসচেতন : সেরা বস তারাই যারা সঠিক সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় আত্মসচেতন হয়ে ওঠেন। এটি যেকোনো সফল নেতার অনবদ্য গুণ। যেকোনো মানুষকে আত্মসচেতন করে তুলতেও ভূমিকা রাখেন বস।

৪. আপনি দলেরই একজন : কোনো ক্লায়েন্ট বা ক্রেতা অফিসে এসে হয়তো বুঝতেই পারেন না আপনি বস। কারণ আপনার আচরণ বিভাগের অন্যান্য কর্মীর মতোই। আপনি তাদের সঙ্গে মিশে থাকেন।

৫. কর্মীদের উন্নতিতে কাজ করেন : ভালো বস সব সময় কর্মীদের মধ্য থেকে পুরোটুকু বের করে আনেন। এমনকি তিনি তাদের মাঝে কর্মোদ্যম ছড়িয়ে দেন এবং তাদের উন্নতিসাধনে নানা পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

৬. আপনি সহজবোধ্য : ভালো বা খারাপ সব ধরনের কর্মীদের সহায়তা দিতে প্রস্তুত আপনি। খুব বেশি বন্ধুসুলভ চাকচিক্য নিয়ে চলেন না আপনি।

৭. আপনি প্রায়ই ক্ষমাহীন : প্রায় সময়ই খুব কঠিন পরিস্থিতি আসে। তখন কর্মীদের যোগ্যতা বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দেয়। এমন অনেক ক্ষেত্রেই আপনি ক্ষমাহীন হয়ে ওঠেন। অর্থাৎ, কর্মী তার ভেতরের পুরোটা ঢেলে দিয়ে নিজেকে প্রমাণ করেন এবং কাজ উদ্ধার হয়।

৮. চরম বিষয় এড়িয়ে চলেন : অধিকাংশ বস তার অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস কিংবা নিরাপত্তাহীনতা থেকে কাজ করে যান। তাদের ভয়, কর্মীরা কথা শুনবে না। সেরা বস হিসাবে আপনি নিজের দুর্বলতা সম্পর্কে সচেতন। এ নিয়ে আপনার মধ্যে কোনো গোপনীয়তা কাজ করে না।

৯. অহং ত্যাগ করতে পারেন : ভালো বস হিসাবে আপনি সহজেই নিজের অহংবোধ ত্যাগ করতে পারেন। তারা সহজেই নিজের চেয়ে জ্ঞানী ও অভিজ্ঞ কর্মীকে নিয়োগ দিতে অস্বস্তিবোধ করেন না। তিনি সুদক্ষ কর্মীবাহিনী তৈরি করতে বদ্ধপরিকর।

১০. আপনি স্বচ্ছ : আদর্শ বস সব বিষয়ে স্বচ্ছতা ধরে রাখেন। কর্মক্ষেত্রে স্বচ্ছতা প্রদর্শনের মাধ্যমে আপনি কর্মীদের সুখের মাত্রা বৃদ্ধি করেন। যে সকল নেতা বা বস স্বচ্ছতা দেখান, তারা কর্মীদের শ্রদ্ধার মানুষ হয়ে ওঠেন।

১১. আপনি অনুপ্রেরণাদায়ক : শুধুমাত্র কাজ গুছিয়ে এনে লক্ষ্য পূরণই ভালো বসের কাজ নয়। আদর্শ বস হিসাবে আপনি কর্মীদের অনুপ্রেরণা প্রদান করেন। কাজ বা কথা বা ইমেইলের মাধ্যমে আপনি নিমিষেই কর্মীদের উদ্যমী করে তোলেন।

১২. আপনি কর্মীদের প্রশংসা করেন : অনেক বস আছে যারা কর্মীদের কোনো ভালো কাজের প্রশংসাই করতে চান না। এমনকি অন্যের কৃতিত্ব নিজের বলে চালিয়ে নেন। কিন্তু আদর্শ বস হিসাবে আপনি কর্মীদের ভালো কাজের প্রশংসা করতে কার্পণ্য করেন না।

১৩. আপনি কাঠামো তৈরি করেন : প্রত্যেক কর্মীর বিষয়ে আপনার ধারণা পরিষ্কার। সব বিষয়ে আপনার মনে একটা কাঠামো তৈরি করা আছে। আপনি তাদের নতুন কাজ দেন এবং তা উদ্ধারে কর্মপরিকল্পনা তৈরি করে দেন।

১৪. আপনি যোগাযোগে দক্ষ : কর্মীদের সঙ্গে আন্তযোগাযোগ স্থাপনে আপনি দক্ষ। যার যা প্রয়োজন তা মেটাতে আপনি সহজে তাদের মনের কথা বের করে আনতে পারেন। কর্মীদের সত্যিকার সমস্যা ভালো বসের কাছে সবচেয়ে গুরুত্ব পায়।

১৫. আপনার কারিশমা আছে : ভালো বস সহজেই কর্মীর ছবিটা এঁকে ফেলতে পারেন। কারিশমার মাধ্যমে কর্মীদের সঙ্গে নিজের সম্পর্ককে চূড়ায় নিয়ে যেতে সক্ষম আপনি। কর্মীদের প্রতি আগ্রহ, মনোযোগ এবং ভালো শ্রোতার বৈশিষ্ট্য ফুটিয়ে তোলার মাধ্যমে আপনি সহজেই তাদের কাছাকাছি থাকতে পারেন।

১৬. সহযোগিতার মূল্যায়ন করেন : ভালো বস প্রয়োজনে কর্মীদের সহযোগিতা নিয়ে থাকেন। এর বিনিময়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে দ্বিধা নেই তাদের। তারা কর্মীদের থেকে খুব দূরে দূরে থাকেন না।
সূত্র : বিজনেস ইনসাইডার

It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn